মাত্র দুটি অভ্যাস পরিবর্তন করেই কমালেন ৮০ কেজি ওজন!


একটি উদ্যো’গই পাল্টে দিতে পারে পুরো জীবন! বিশ্বা’স করুন আর নাই করুন, ঠিক এমনই একটি ঘ’টনা ঘ’টেছে ২১ বছর বয়সী জেসিকা বেনিকেজে’র জীবনে। ১৪৫ কেজি ওজনের জেসিকা মাত্র দুটি অভ্যাস পরিবর্তন করে নিজে’র ওজন কমিয়েছেন ৮০ কেজি।

জেসিকা জনপ্রিয় পিপলস ম্যাগাজিনকে জা’নিয়েছেন, আমা’র একদমই ভালো লাগতো না। বি’ছানা থেকে ওঠা আমা’র জন্য ছিলো অনেক ক’ষ্ট’কর। আমি বুঝতে পারতাম আমা’র ওজন কমানো দরকার, আমা’র উচ্চ র’ক্তচা’পের স’মস্যাও ছিল।

ওজন কমানোর এই উদ্যো’গ নিতে নিতে জেসিকার লে’গে গিয়েছিল প্রায় একবছর। একসময় তার জীবন চলতো ফাস্ট ফুডের উপর। চিকেন নাগেটস, পাস্তা, ফ্রেঞ্চ ফ্রাই ছিল তার প্রধান খাবার।

তার কাজ ছিল খাওয়া, কাজে যাওয়া, কাজ শেষে বাড়ি ফি’রে টিভি দে’খতে দে’খতে আবার খাওয়া। ২০১৬ সালে জেসিকা প্রথমবারের মতো নিজে’র ওজন কমানোর ব্যাপারে উদ্যো’গ নিলেন।

প্রথম চ্যালেঞ্জই ছিল ডায়েট। প্রথম প্রথম ক’ষ্ট হলেও তার ফাস্ট ফুড নির্ভর ডায়েট পরিবর্তিত হয়ে সেখানে স্থান দখল করে গাজর, দই, কটেজ চিজ, শাকসবজি আর গ্রিলড চিকেন সালাদ।

ধীরে ধীরে তিনি তার খ্যাদ্যাভাস পরিবর্তন করে ফেললেন। কথায় আছে, মানুষ অভ্যাসের দাস। খাদ্যাভাস পরিবর্তনের সাথে সাথে তিনি প্রতিরাতে হাটার অভ্যাসও শুরু করলেন এবং ইউটিউব ভিডিও দেখে ব্যায়াম করা শুরু করলেন।

পরবর্তীতে, জেসিকা জিমনেশিয়ামে ভর্তি হন, দৈনিক দুই ঘণ্টা করে তিনি জিমনেশিয়ামে সময় দিতে থাকেন। জেসিকা ওজন কমানোর এই পুরো সময়টা নিজে’র ইনস্টাগ্রামে শেয়ার ক’রতে থাকেন। নানা পেশার সর্বস্তরের মানুষ জেসিকার এই অসামান্য পরিশ্রমকে সাধুবাদ জা’নান।

তিনি যে জিমনেশিয়ামে শ’রীরচর্চা করছিলেন সেখানকার মানুষ তাকে অনুকরণীয় মনে করতো। তার ওজন কমানোর ব্যাপারটি এতোটাই অনুপ্রেরণা জাগিয়েছিল যে, জিমনেশিয়াম ক’র্তৃপক্ষ তাকে সেখানেই ফ্রন্ট ডেস্কে চাকরি দিয়ে দেয়।

জেসিকা এখন একজন সার্টিফায়েড জিম ট্রেইনার হওয়ার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছেন। একসময় ১৪৫ কেজি ওজনের জেসিকা এখন মাত্র ৬৫ কেজি ওজনের একজন আক’র্ষণীয় নারীতে প’রিণত হয়েছে।

তিনি আশা করেন, তার ওজন কমানোর এই গল্প সারা পৃথিবীর মুটিয়ে যাওয়া মানুষকে ওজন কমাতে অনুপ্রেরণা যোগাবে। মুটিয়ে গেছে আপনার শ’রীর? ওজন কমানোর মিশনে ঝাঁপিয়ে পড়ুন আজই।


Best bangla site

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *