রিল আর রিয়েল লাইফ: বলিউডে যত র’হস্যাবৃত মৃ’ত্যু


সিনেমা’র ব্যাকগ্রাউন্ড রিলে গল্পটা যেরকম, বাস্তব জীবনে সে গল্পটা হয় ভিন্ন, কঠিন আর ভীষণ হতাশার। যেখানে থাকে আকাশ-পাতাল ফারাক। যা ঠেলে দেয় মৃ’ত্যুর দিকে। বলিউডে এ পর্যন্ত মানসিক অবসাদ, আত্মহ’ত্যার মতো ঘটনা দেখা গেছে বহুবার। সর্বশেষ এই তালিকায় নতুন যু’ক্ত হলেন সুশান্ত সিংহ রাজপুত।

বলিউডে এমনই কিছু অ’ভিনেতার অবসাদ আর আত্মহ’ত্যা স’ম্পর্কিত তথ্য তুলে ধ’রা হল।

সুশান্ত সিংহ রাজপুত: ‘কাই পো চে’ এর মধ্য দিয়ে বলিউডে পা রাখেন। ২০০৯ সালে মুখ্য চরিত্রে অ’ভিনয় শুরু করেন ‘পবিত্র রিস্তা’ সিরিয়ালে। এর পর মহেন্দ্র সিংহ ধোনির বায়োপিক ‘ধোনি: দ্য আনটোল্ড স্টোরি’ দিয়ে প্রতিষ্ঠা পান বলিউডে। এছাড়া অ’ভিনয় করেছেন ‘রাবতা’, ‘কেদারনাথ’, ‘পিকে’, ‘শুদ্ধ দেশি রোমান্স’, ‘ছিঁচোড়ে’র মতো সিনেমাতে।

১৪ জুন মুম্বাইয়ের বান্দ্রার বাড়ি থেকে উ’দ্ধার হয় অ’ভিনেতার ঝুলন্ত দেহ। তার মৃ’ত্যুকে ঘিরে তৈরি হয়েছে নানা র’হস্য। প্রাথমিকভাবে এ ঘটনাকে আত্মহ’ত্যা বলে ধারণা করছে পু’লিশ। তবে সুশান্তের এক আত্মীয়ের দাবি, তাকে খু’ন করা হয়েছে।

ওই আত্মীয় ভা’রতের বিহারের পূর্ণিয়ার বাসিন্দা। সিবিআই ত’দন্তের দাবিও জানিয়েছেন তিনি।

শ্রীদেবী: ২০১৮ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারিতে দুবাইয়ের এক সাততারা হোটেলের বাথটব থেকে অচেতন অবস্থায় উ’দ্ধার করা হয় তাকে। হাসপাতা’লে নিয়ে গেলে ডাক্তাররা মৃ’ত বলে ঘোষণা করেন। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে খু’নের অ’ভিযোগসহ আত্মহ’ত্যার গুঞ্জন উঠে।

কিন্তু মেডিকেল পোস্টম’র্টেম রিপোর্টে লেখা ছিল, পানিতে ডুবে মৃ’ত্যু। তবে রিপোর্ট নিয়ে প্রশ্ন থেকে যায়; বাথটবের পানিতে ডুবে মৃ’ত্যুর ঘটনা সম্ভব কিনা।

দিব্যা ভা’রতী: ১৯৯৩ সালের ৭ এপ্রিল নিজের বাড়িতে মাত্র ১৯ বছর বয়সে মৃ’ত্যু হয় তার। বলিউডে কাজ করেন প্রায় বছর খানেকের মত। এই অল্প সময়ে তার এক ডজন ছবির রেকর্ড আজও ভাঙতে পারেনি কেউ।

নিজের বাসায় রাতের পার্টি করার সময় বাড়ির ব্যালকনি থেকে পড়ে মা’রা যান তিনি। পরিবার থেকে বলা হয়েছিল, টাল সামলাতে না পেরেই পড়ে গিয়েছিলেন তিনি। তবে তার মৃ’ত্যুকে ঘিরে পরিক’ল্পিত খু’নের অ’ভিযোগ উঠে। যদিও প্রমাণ মেলেনি। এরপর দিব্যার মৃ’ত্যুর ত’দন্তও পু’লিশ বন্ধ করে দেয়।

পারভিন ববি: ১৯৮০ এর দশকে বলিউড কাঁপানো অ’ভিনেত্রী পারভিন ববির শেষ জীবন কে’টেছে বড়ই ক’ষ্টে। অজানাভাবে নিজের ফ্ল্যাটেই মা’রা যান তিনি। খবর পেয়ে ফ্ল্যাটের দরজা ভেঙে তার ম’রদেহ উ’দ্ধার করা হয়।

সিল্ক স্মিতা: আইটেম গার্ল থেকে অ’ভিনেত্রী হয়ে উঠতে বেশ কাঠখড় পোড়াতে হয়েছিল এই অ’ভিনেত্রীকে। কিন্তু মুম্বাইয়ের নিজের বাড়িতে আত্মহ’ত্যা করেছিলেন তিনি। আত্মহ’ত্যার কারণ জানা যায়নি আজও।

গুরু দত্ত: মাত্র ৩৯ বছর বয়সে মা’রা যান তিনি। গুঞ্জন রয়েছে, ম’দের সঙ্গে ঘুমের ওষুধ মিশিয়ে পান করার কারণে মৃ’ত্যু হয়েছিল এই অ’ভিনেতা-পরিচালকের। ঘনিষ্ঠজনদের দাবি, মৃ’ত্যুর আগের দিনও বেশ হাসিখুশি ছিলেন গুরু। কিন্তু এ ঘটনার র’হস্য উন্মোচন হয়নি আজও।

জিয়া খান: অন্তঃসত্ত্বা অবস্থায় আত্মহ’ত্যা করেছিলেন তিনি। অ’ভিযোগ উঠেছিল তার সেই সময়ের বয়ফ্রেন্ড সূরজ পাঞ্চোলির বি’রুদ্ধে। এ ঘটনায় জিয়ার মা দাবি করেছিলেন; পরিস্থিতির চাপে পড়ে জিয়া বাধ্য হয়েছিলেন এমন একটা চরম সিদ্ধান্ত নিতে। জিয়ার ঘর থেকে উ’দ্ধার হয়েছিল সুই’সাইড নোট।

অর্চনা পাণ্ডে: ২০১৪ সালে মুম্বাইের ভা’রসোভাতে নিজের ফ্ল্যাট থেকে ঝুলন্ত দেহ উ’দ্ধার হয় মডেল অর্চনা পাণ্ডের। তার ঘর থেকে একটি সুই’সাইড নোট উ’দ্ধার করা হয়। তাতে বয়ফ্রেন্ড ওম’র পাঠানের বি’রুদ্ধে অ’ভিযোগ তুলেছিলেন অর্চনা।

নাফিসা জোসেফ: ২০০৪ সালে ‘বিউটি কুইন’ও ভিজে নাফিসার ঝুলন্ত দেহ উ’দ্ধার হয় মুম্বাইয়ে তার অ্যাপার্টমেন্ট থেকে।

কুলজিৎ রণধাওয়া: ২০০৬ সালে বাসা থেকে তার ঝুলন্ত দেহ উ’দ্ধার হয়। হিপ হিপ হুররে, কোহিনূর-এর মতো জনপ্রিয় শো-এ ছিলেন তিনি। সুই’সাইড নোটে মৃ’ত্যুর কারণ হিসেবে মানসিক চাপের কথা উল্লেখ করেছিলেন কুলজিৎ।

বিবেকা বাবাজি: ভা’রতের অন্যতম সেরা মডেল বিবেকার ঝুলন্ত দেহ উ’দ্ধার হয়। তাঁর ঘর থেকে পাওয়া একটি ডায়েরিতে লেখা ছিল— আই কিল। স’ন্দেহ করা হয়, বয়ফ্রেন্ডের সঙ্গে মনোমালিন্যই তার এই পথ বেছে নেওয়ার কারণ।

কুনাল সিংহ: ‘দিল হি দিল ম্যায়’ ছবির অ’ভিনেতা। ঘরের সিলিং ফ্যান থেকে ঝুলন্ত দেহ উ’দ্ধার হয়। যদিও অ’ভিনেতার বাবার দাবি, কুনালকে খু’ন করা হয়েছে।

মনমোহন দেশাই: বাড়ির ব্যালকনি থেকে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহ’ত্যা করেছিলেন তিনি। তার ঘনিষ্ঠজনদের দাবি, সিনেমা’র কেরিয়ারে সাফল্য না পাওয়ার কারণে জন্যই আত্মহ’ত্যা করেছেন পরিচালক। সূত্র- আনন্দবাজার


Best bangla site

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *